স্কলারশিপ সংক্রান্ত পোস্ট – পর্ব ১

Published January 17, 2016 by বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি তথ্য ও সহযোগিতা কেন্দ্র

যারা বিভিন্ন দেশে স্কলারশিপ নিয়ে পড়াশুনা করতে চাও তাদের আগে যেটা সব থেকে প্রয়োজন সেটা হলো নিজের পাসপোর্ট থাকা ।কারন পাসপোর্ট না থাকলে তুমি কোন কাজ ই শুরু করতে পারবা নাহ।তাই আগে নিজের পাসপোর্ট বানিয়ে নাও যদি বাইরে পড়ার ইচ্ছা থাকে তাহলে….

তাই আজকে থেকে ইনসাআল্লাহ পাসপোর্ট নিয়ে আগে ৩ পর্বের পোস্ট দিব প্রতিদিন সকাল ১০ টায় করে।

পাসপোর্ট কার, কখন, কোথায় প্রয়োজন হয় সেটা বলা যায় না , তাই নিজের পাসপোর্ট থাকা ব্যাপারটা মন্দ না। পাসপোর্ট করা নিয়ে অনেকেরই বিরূপ অভিজ্ঞতা আছে , সেটা নিয়ে নতুন অনেকেরই ভয় কাজ করে। আসলে এইরকম অফিসিয়াল ব্যাপারগুলো আত্মবিশ্বাসের সাথে করলে একটা না একটা উপায় সহজভাবেই বের হয়ে আসে।

আমিও তেমনটাই করেছিলাম, এবং বিশ্বাস কর – কোনরকম ঝামেলা ছাড়াই এবং একমাসের মধ্যেই পেয়ে গেছিলাম।

ফর্ম জমা আর ভেরিফিকেশান লম্বা লাইনে দাঁড়াতে হয় নি :3 ।

পরে একদম সরাসরি যেয়ে ছবি তুলে এসেছি ! তাও আবার নিজের পছন্দসই ডেটে।

দালালের খপ্পড় বা পাসপোর্ট অফিসের কারো কোন সমস্যার ছাড়াই !

একদমই ঝামেলা ছিল না এবং যাতায়াত মিলিয়ে খরচ হয়েছে ৩৮০০/- টাকার মত !

তো এখন যারা অনলাইনে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট করতে যাচ্ছ, তাদের জন্য ব্যাপারটাকে আরো সহজ করে তোলার জন্যই আমি। আশা করি উপকৃত হবে।

তুমিও খুব সহজেই পারবে।কারণ অনলাইনে পাসপোর্ট পাওয়া অনেক অনেক সহজ একটা কাজ যদি একটু জানা থাকে । পাসপোর্ট হাতে পাওয়াসহ সব মিলিয়ে তোমাকে মাত্র তিনদিন যেতে হবে।আর সাথে টুকিটাকি যদি জানা থাকে তাহলে আর কথাই নেই।আর তার জন্য তোহ আমি আছি ই।

আস, একদম শুরু থেকে শুরু করি অনলাইনে পাসপোর্ট ফর্ম পূরণ করা এবং পরের ধাপের কাজগুলো নিয়ে।

প্রথম ধাপ : ব্যাংকে টাকা জমা দেয়া

সোনালী ব্যাংকের শাখায় পাসপোর্ট আবেদনের ফি হিসাবে টাকা জমা দিতে হবে। রেগুলার ফি ৩৪৫০/- টাকা ( ১ মাসের মধ্যে পাসপোর্ট পেতে হলে)।

প্রথমেই টাকা জমা দেয়া প্রয়োজন এই কারণে যে , অনলাইনে ফর্ম পূরণ করার সময় টাকা জমা দেয়ার তারিখ এবং জমাদানের রিসিটের নাম্বার উল্লেখ করার প্রয়োজন হবে। তাই টাকা আগে জমা দেয়া থাকলে একবারেই ফর্ম পূরণ করা হয়ে যাবে।

আমার টিপস –

লাইনে দাঁড়ালে ব্যাংকের কাজ শুরুর আগেই ব্যাংকের লোকজন রিসিট দিয়ে যাবে। বা নিজেই টাকা দেয়ার রিসিট সংগ্রহ করে নাও।রিসিট পেলে ইংরেজি ব্লক লেটার স্পষ্টভাবে পূরণ কর।

সাথে অবশ্যই কলম রাখ।

দ্বিতীয় ধাপ – অনলাইনে ফর্ম পূরণ

অনলাইনে ফরম পূরণের জন্য প্রথমেই যাও পাসপোর্ট অফিসের এই সাইটে – http://www.passport.gov.bd/ । নির্দেশনা ভালোভাবে দেখ , সতর্কতার সাথে একাউন্ট কর ।তোমার নাম ও ব্যক্তিগত তথ্যাদি ( যেমন নামের বানান, প্যারেন্টস এর নাম ) যেন শিক্ষাগত সার্টিফিকেটের মতই হয় সেদিকে খেয়াল রাখ ।

মেইল এড্রেস আর মোবাইল নাম্বার দেয়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই রেগুলারটা দেবে।

টাকা জমা দেয়ার তারিখ এবং রিসিট নাম্বার উল্লেখ কর।

সবশেষে তুমি যেদিন ছবি তোলা ও হাতের ছাপ দেয়ার জন্য বায়োমেট্রিক টেস্ট দিতে যেতে চাও, সুবিধামত সেইদিনটা নির্বাচন করে সাবমিট কর। অর্থ্যাৎ তুমি নিজের পছন্দসই সময়েই যেতে পারছো ! ব্যাপারটা দারূণ না?

এবার , রিচেক কর। দেখ সব তথ্য ঠিক আছে কিনা।

সবশেষে সাবমিট কর ।সফলভাবে সাবমিশন শেষ হলে পূরণকৃত ফর্মের একটি পিডিএফ কপি তোমার মেইলে চলে আসবে ।এইধাপ এইখানেই শেষ।

পাসপোর্ট এর দ্বিতীয় পর্বো দেখতে চোখ রাখ কালকে ঠিক সকাল ১০ টায় ।

#নাঈম
Taylor’s University, Malaysia

Advertisements

One comment on “স্কলারশিপ সংক্রান্ত পোস্ট – পর্ব ১

  • Leave a Reply

    Fill in your details below or click an icon to log in:

    WordPress.com Logo

    You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

    Twitter picture

    You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

    Facebook photo

    You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

    Google+ photo

    You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

    Connecting to %s

    %d bloggers like this: