ইঞ্জিনিয়ারিং সংক্রান্ত পোস্ট পর্ব-০৪

Published April 22, 2016 by বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি তথ্য ও সহযোগিতা কেন্দ্র

#ইঞ্জিনিয়ারিং_সংক্রান্ত_পোষ্ট-৪:

সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ডের অথচ ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার স্বপ্ন নেই এমন স্টুডেন্ট পাওয়া দূর্লভ। এই পোষ্টে থাকছে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ইঞ্জিনিয়ারিং সাবজেক্টের আসন সংখ্যা, আবেদনের যোগ্যতা, মানবন্টন। আজকের আলোচনা হাবিপ্রবি নিয়ে।

ইতিহাস : ১৯৭৯ সালে হাজী মোহাম্মদ দানেশ এগ্রিকালচারাল কলেজ নামে প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরু। তখন ৩ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা পড়ানো হতো। এই কলেজের বর্ধিত ও পূর্নাঙ্গ রুপ হলো হাবিপ্রবি। ১৯৯৯ সালের ১১ সেপ্টেম্বর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের মাধ্যমে উত্তরাঞ্চলের প্রথম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে হাবিপ্রবির যাত্রা শুরু হয়।

অবস্থান: দিনাজপুর শহর হতে ১০ কিমি উত্তরে ‘ঢাকা-রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক সংলগ্ন বাশের হাট নামক স্থানে অবস্থিত।

প্রথমে শুধু কৃষিভিত্তিক বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দেওয়া হলেও তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশের সাথে সাথে ইঞ্জিনিয়ারিং অঅনুষদ কখোলা হয় এবং ইঞ্জিনিয়ারিং সাবজেক্ট পড়ানোশুরু করা হয়। ইঞ্জিনিয়ারিং সাবজেক্ট গুলোর নাম এবং আসন সংখ্যা নিন্মে দেওয়া হলো:

☞ B ইউনিট

১।কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং(CSE) – ৭০ টি আসন

২।ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং(EEE) – ৭০ টি আসন

৩।ইলেকট্রিক্যাল এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং(ECE) – ৭০ টি আসন

☞ D ইউনিট
১।মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারি(ME) – ৫০ টি আসন

২।সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং(CE) – ৫০ টি আসন

৩।এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং(AE) – ৬০ টি আসন

৪।ফুড প্রসেস এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং(FPE) – ৬০ টি আসন

☞ E ইউনিট

১।আর্কিটেকচার(B.Arch) – ৩৫ টি আসন

✎ আবেদনের যোগ্যতা: মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পৃথক ভাবে নূন্যতম জিপিএ ৩.০০ সহ মোট নূন্যতম ৬.৫০ থাকতে হবে।

পরীক্ষার মানবন্টন:

☑ B ইউনিট

ইংরেজী-২৫, পদার্থবিজ্ঞান-২৫, রসায়ন-২৫, গণিত-২৫

মোট – ১০০

সময়: ১ ঘন্টা

☑ D ইউনিট

ইংরেজী-২৫, পদার্থবিজ্ঞান-২৫, রসায়ন-২৫, গণিত-২৫

সময়: ১ ঘন্টা

মোট – ১০০

☑ E ইউনিট

ইংরেজী-১০, পদার্থবিজ্ঞান-২০, রসায়ন-২০, গণিত-২০, ড্রয়িং – ৫০

মোট – ১৫০

সময়: ১ ঘন্টা ৩০ মিনিট

♦♦মেধাক্রম গণনা :

B & D ইউনিট: মোট ১৫০ নাম্বারে মেধাক্রম গণনা করা হবে। ভর্তি পরীক্ষায় ১০০ নাম্বার এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের জিপিএ হতে ৫০ নাম্বার গণনা করা হবে।

E ইউনিট: মোট ২০০ নাম্বারে মেধাক্রম গণনা করা হবে। ভর্তি পরীক্ষায় ১০০ নাম্বার, মুক্ত হস্ত ড্রয়িং এ ৫০ নাম্বার এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের জিপিএ হতে ৫০ নাম্বার গণনা করা হবে।

♣♣জিপিএ গণনা :
(মাধ্যমিকের জিপিএ*৪)+(উচ্চমাধ্যমিকের জিপিএ*৬)

বি.দ্র: ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে না।
সেকেন্ড টাইম এক্সাম দেওয়া যায়

#

Koushik Kumar Biswas, Department Of Electrical & Electronics Engineering (EEE), Shahjalal University Of Science & Technology (SUST). Facebook: http://www.facebook.com/koushikkumar.biswas

Koushik Kumar Biswas, Department Of Electrical & Electronics Engineering (EEE), Shahjalal University Of Science & Technology (SUST).
Facebook: http://www.facebook.com/koushikkumar.biswas

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s